আজ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | রাত ৩:৫৬

  • বাংলা English
সদ্য :

☉ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় ধারালো অস্ত্রসহ কিশোর গ্রেপ্তার☉ হত্যা চেষ্টাসহ একাধিক মামলার আসামীর অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ☉ ইউপি নির্বাচনের জেরে সাবেক ইউপি সদস্যের ওপর হামলা☉ বিদ্যালয় খুললেও ভবন ধ্বসের আতঙ্ক নিয়ে ক্লাস করছে শিশু শিক্ষার্থীরা☉ সুন্দরবনে পারমিটবিহীন চার ফিশিং ট্রলারসহ ৪৪ জেলে আটক☉ মিরুখালীতে দোকান ঘর সংস্কারে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-৩☉ বৃত্তিমূলক আবাসিক মহিলা প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন☉ চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদ করায় জাপা নেতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ!☉ বঙ্গোপসাগরে ফিশিং ট্রলার ডুবি ১৬ জেলে উদ্ধার☉ অধ্যক্ষকে লাঞ্ছনাকারী অফিস সহকারীকে গ্রেফতারের দাবীতে শিক্ষকদের লাগাতার কর্মসূচী ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার: মঠবাড়িয়া পৌরশহরের ৩নং ওয়ার্ডে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় ধারালো অস্ত্রসহ শুভ শীল (২১) নামে এক কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে ব্যবসায়ি সেলিম চৌকিদার বাদী হয়ে ১০ জন ও অজ্ঞাতনামা ২০/৩০ জনকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করলে পুলিশ শুভ শীলকে গ্রেপ্তার করে।
মামলা সূত্রে জানাযায়, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার দুপুরে মঠবাড়িয়া পৌর এলাকার ওয়াপদা রোডে সেলিম চৌকিদারের কনফেকশনারীর দোকানে ২০/৩০ জনের একটি কিশোর গ্যাং চাইনিজ কুড়ালসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। এতে সেলিম চৌকিদারের ছেলে রুবেল গুরুতর জখম হয়। এসময় স্থানীয়রা ধাওয়া করে শুভ শীলকে আটক করে থানা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দুইটি চাইনিজ কুড়ালসহ শুভ শীলকে আটক করে।
ব্যবসায়ি সেলিম চৌকিদার জানান, সোমবার রাতে এ কিশোর গ্যাংটি তার বাসা এলাকায় পিকনিক করে। এ সময় কে বা কারা ৯৯৯ এ কল করে থানা পুলিশকে খবর দেয়। এতে তারা আমাকে সন্দেহ করে। এর জের ধরে মঙ্গলবার দুপুরে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়।
স্থানীয় ব্যবসায়ী আবুল কালাম জানান, এ কিশোর গ্যাংটি দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদক সেবনসহ, স্কুল, কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীদের ইভটিজিং করে আসছে। কিন্তু তাদের ভয়ে এলাকার কেউ কথা বলার সাহস পায়না।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল জানান, এ ঘটনায় শুভ শীল নামের একজনকে গ্রেপ্তার করে বুধবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের পুলিশের চেষ্টা অব্যহত আছে।

স্টাফ রিপোর্টার: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় হত্যা চেষ্টা, প্রতারণাসহ ৭ মামলার জামিনে থাকা আসামী শফিকুলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসি। দিনদিন স্থানীয়দের ওপর তার অত্যাচারের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে। উপজেলার তুষখালী গ্রামের আইউব আলীর ছেলে শফিকুলকে সন্ত্রাস, প্রতারক, মাদকসেবী আখ্যা দিয়ে তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে তুষখালী ইউনিয়ন পরিষদ হলরুমে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।
এসময় লিখিত বক্তব্যে তুষখালী ইউপির সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান আকন বলেন, চিহ্নিত সন্ত্রাসী শফিকুল নিরীহ লোকদের কাছ থেকে প্রধান মন্ত্রীর দেয়া ঘর, বিদ্যুতের খুঁটি, ড্রাম ও সৌর বিদ্যুৎ দেয়ার আশ^াস দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ওই টাকা ফেরৎ চাইতে গেলে আমাদের ওপর হামলাও চালিয়েছে। এ ঘটনায় শফিকুলের বিরুদ্ধে স্থানীয়রা একাধিক মামলাও করেছে। এছাড়াও ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ধানীসাফা ইউনিয়ন ক্ষুদ্র পানি সেচ প্রকল্পের আওতায় তুষখালী বাশঘরি খাল খননের ৯৯ লাখ টাকা খাল না কেটে আত্মসাৎ করেছে। এছাড়াও স্থানীয় ব্যবসায়ী নাছির হাওলাদারের কাছে তুষখালী বাজারে দোকান-ভিটি বিক্রির নামে শফিকুল ৫৪ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। এ ব্যাপারে শফিকুলের বিরুদ্ধে থানায় প্রতারণা মামলা পুলিশের তদন্তাধীন রয়েছে।
তিনি আরও বলেন, এসব অপকর্ম করেও তিনি নিজেকে বাঁচাতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও তার ছেলেকে জড়িয়ে বার বার মিথ্যা প্রভাকান্ডা ছড়াচ্ছে। সন্ত্রাসী শফিকুলকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এতে উপস্থিত ছিলেন, মাসুম খলিফা, তাসলিমা বেগম, মন্টু মিয়া প্রমুখ। অভিযুক্ত শফিকুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান হাওলাদার, সাবেক ইউপি সদস্য ছগির হাওলাদার আমার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে এবং বিভিন্ন মামলায় আমি জামিনে থাকলেও মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আমার প্রতিপক্ষদের পক্ষ অবলম্বন করে আমাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহা. নুরুল ইসলাম বাদল বলেন, শফিকুলের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া থানায় হত্যা চেষ্টা, প্রতারণা ও মারামারিসহ ৭ টি মামলা রয়েছে।

স্টাফ রিপোর্টার: মঠবাড়িয়ার বেতমোর রাজপাড়া ইউপির সাবেক সদস্যের ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষ ইউপি সদস্য মোদাচ্ছের হোসেনের বিরুদ্ধে। হামলায় আহত ওয়াদুদ শিকদার পিরু (৫০) কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। আহত পিরু উপজেলার বেতমোর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আজিজ শিকদারের ছেলে ও বেতমোর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার রাজপাড়া গ্রামের অধিকার বাড়ির প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
আহত পিরু অভিযোগ করেন, ইউপি নির্বাচনে প্রতিপক্ষ মোদাচ্ছের তার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন। গত প্রথম ধাপের নির্বাচনী ক্যাম্পেইন চলাকালীন মোদাচ্ছের আমাকে নির্বাচন থেকে সরে যাবার জন্য একাধিকবার হুমকি দেয়। এতে রাজি না হলে নির্বাচনের পূর্বে তার দলবল নিয়ে তিনি আমার ওপর হামলা চালায়। আমি মামলা করলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠায়। জেল থেকে বের হয়ে নির্বাচনে তার অনেক টাকা খরচ হয়েছে বলে আমার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছিলো। শনিবার আমি গ্রামের বাড়ি থেকে পৌর শহরে আসার পথে বেতমোর বাজার সংলগ্ন স্থানীয় অধিকারী বাড়ির প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে মোদাচ্ছের এর নেতৃত্বে ৪/৫টি মটর সাইকেল পিছন থেকে এসে প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে আমার গতিরোধ করে। এসময় আমাকে এলাপাতারী পিটিয়ে গুরুতর জখম করে আমার কাছে থাকা ২ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও তিনি জানান।
অভিযুক্ত ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ মোদাচ্ছের হোসেন তার বিরুদ্ধে মারধর ও টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবী করে বলেন- ঘটনার সময় শনিবার সারাদিন আমি ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে শালিশ বৈঠকে ব্যস্ত ছিলাম। পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ পিরু শিকদার মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে আমাকে রাজনৈতিক ভাবে হেয় করা চেষ্টা চালাচ্ছে।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্টাফ রিপোর্টার: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বলেশ্বরে সামনের সিরিয়ালে জাল পাতাকে কেন্দ কর্রে সৃষ্ট বিবাদে প্রতিপক্ষের হামলায় ইব্রাহীম (২৮) নামের এক জেলে গুরুতর জখম হয়েছে। স্বজনরা নদীতে মাছ ধরা ট্রলার হতে গুরুতর অবস্থায় ইব্রাহীমকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। ঘটনাটি বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) ভোররাতে কাটাখাল নামক স্থানে বলেশ্বর নদীতে ঘটেছে। আহত ইব্রাহীম উপজেলার জানখালী গ্রামের খলিলুর রহমানের পুত্র।
আহত সূত্রে জানাযায়- জেলে ইব্রাহীম বৃহস্পতিবার ভোররাত ৪টার সময় খাটাখাল নামক স্থানে বলেশ্বর নদীতে মাছ ধরার জন্য ইলিশের জাল ফেলে। এর কিছুক্ষণ পর প্রতিবেশী জেলে রাসেল, নজরুল ও নাইমও সামনে জাল পাতে। এ নিয়ে দু’গ্রুপের মধ্যে বাক বিতন্ডা হয়। এক পর্যায় উল্লেখিত প্রতিপক্ষ ও অজ্ঞাত নামা আরও ২/৩ জন ট্রলারে সজোরে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে ইব্রাহীমকে ধারালো অস্ত্র ও লোহার রড দিয়ে এলোপাতারি কোপালে ও পিটালে মলদ্বারসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম হয়।
অভিযুক্ত জেলে রাসেল তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলে, ইব্রাহীম নিজের ট্রলার থেকে পড়ে আহত হয়েছে বলে দাবী করেন।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ নূরুল ইসলাম বাদল বলেন, এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্ততি ও জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

স্টাফ রিপোর্টার: মরণঘাতি করোনা ভাইরাসে দীর্ঘ ৫শ’ ৪৪ দিন বন্ধ থাকার পর রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললেও মঠবাড়িয়ার একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ ভবনে প্রায় দেড়শ শিক্ষার্থী গত কয়েকদিন ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কøাশ করছে। দীর্ঘ ছুটির পর শিশু শিক্ষার্থীরা পাঠদান করলেও ক্লাশে ফেরার আনন্দ ম্লান করে দিয়েছে বিদ্যালয়ের ঝুঁকিপূর্ন ভবন। স্কুল ভবনের ছাদ ও ওয়ালের প্লাষ্টার ধসে পড়াসহ ব্যবহার অযোগ্য ভবনের কক্ষে কোমলমতি শিশুদের পাঠদান করতে বাধ্য হওয়ায় যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে বড় ধরণের দূর্ঘটনা। ফলে ধসে পড়ার আতঙ্ক বিরাজ করছে ওই স্কুলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের মাঝে। খবর পেয়ে গত সোমবার দুপুরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা অচ্যুতানন্দ দাস বিদ্যালয় পরিদর্শণ করে ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বিকল্প ভাবে ক্লাশ চালু রাখার আশ্বাস দেন।


সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায়Ñ উপজেলার সদর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড দক্ষিণ মিঠাখালী গ্রামে অবস্থিত ১১৬নং দক্ষিণ পূর্ব মিঠাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি বিগত-১৯৯৫ইং সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা ব্যয়ে একতলা ভবন নির্মান করে। স্থানীয়দের অভিযোগ স্কুল ভবন নির্মানের শুরুতেই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে নি¤œ মানের কাজ করার অভিযোগ করেও কোন ফল পায়নি। এদিকে বিকল্প কোন ভবন না থাকায় ওই ভবনে চলে আসছে পাঠদান। দীর্ঘদিন ওই ভবন সংস্কার না করায় বহু আগেই বিদ্যালয়টি জরাজীর্ণ অবস্থা বিরাজ করে। এর মধ্যে করোকালীন সময়ে দীর্ঘ ১৮ মাস বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় গত ও চলতি বছরের অব্যহত ভারী বর্ষণে বিদ্যালয় ভবনটি আরো নাজুক অবস্থায় পড়ে।
সরেজমিনে গেলে দেখা যায় ২৫ বছর আগে নির্মিত চার কক্ষ বিশিষ্ট একতলা ভবনের বেহাল দশা। দীর্ঘদিন বিদ্যালয়ের মাঠ ভরাট না করায় হাটু পানি-কাঁদা ভেঙ্গে বিদ্যালয় প্রবেশ করছে শিশুরা। বিদ্যালয়ে প্রবেশের সিড়ি, পাথর, বালু উঠে গিয়ে বহু আগেই মাটির সাথে মিশে খাদের সৃষ্টি হয়েছে। বিদ্যালয়ে ঢুকে দেখা যায়, নাজুক ২ কক্ষের মধ্যে দ্বিতীয় ও পঞ্চম শ্রেনীর ৩০/৩৫ জন শিক্ষার্থী ক্লাশে বসা। সবার মধ্যেই যেন এক ধরণের উৎকন্ঠা। এরমধ্যে হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হলে কোমলমতিদের মধ্যে আতঙ্ক আরো বেড়ে যায়। বহু আগেই ছাদের ও দেয়ালের প্লাষ্টার ধসে পড়া বিভিন্ন স্থানের রড বাহির থেকে দেখা যায়। ভবনের নাজুক দরজা, জানালার গ্রীলে মরিচা পড়ে মাটিতে পড়ে রয়েছে। পঞ্চম শ্রেনির শিক্ষার্থী ফারজানা জানায়, দীর্ঘদিন পর ক্লাশ খুললেও আমাদের মাঝে আনন্দ নেই। ভয়ে থাকি কখন যেন ছাদ ভেঙ্গে মাথায় পড়ে।
ওই বিদ্যালয়ের ইমন নামের পঞ্চম শ্রেনির আর এক ছাত্র জানান, মেঘ দেখলে অনেক সময় ক্লাস না করে বাড়ি যাই এবং পাঠদানে কক্ষে থাকলেও ভবন ধসে পড়ার আতংকে ঠিকভাবে ক্লাশে মনযোগী হতে আমারা পারছি না।
স্থানীয় অভিভাবকদের অভিযোগ, বর্তমান সরকারের আমলে ২০১৩ সালে অত্র বিদ্যালয়টি বেসরকারী রেজিষ্ট্রার্ড থেকে সরকারী হলেও স্কুলটিতে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। তারা আরও বলেন, নতুন নতুন ভবন প্রতিবছর রংতুলি ও ক্ষুদ্র মেরামতের জন্য অর্থ বরাদ্দ পেলেও ওই বিদ্যালয়ের নতুন ভবন বা সংস্কারের জন্য রহস্যজনক কারনে কোন অর্থ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি।
বিদ্যালয়ের জমি দাতা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. শহিদুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের ভবনের সমস্যার বিষয়টি স্থানীয় এমপি স্হ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একাধিকবার জানালেও কোন ফল পাওয়া যায়নি।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা আফরোজা সুলতানা মুক্তা প্রায় দেড়শ শিক্ষার্থী ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে ক্লাশ করার কথা স্বীকার করে বলেন- আমি গত ১১ জুলাই-২০১৮ তারিখ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকা হিসেবে যোগদান করি। ওই সময়েই বিদ্যালয়ের অবস্থা নাজুক ও জরাজীর্ণ ছিল। আমি যথাসময়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট বিষয়টি অবহিত করি। দীর্ঘ সময়েও নতুন ভবন কিংবা বর্তমান ভবনটি সংস্কার হয়নি। তিনি আরো জানান, জরাজীর্ণ ভবনের কারনে প্রায়ই বিদ্যালয়ে চুরির ঘটনা ঘটেছে।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা অচ্যুতানন্দ দাস পরিদর্শণ শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ওই বিদ্যালয়টি ঝুঁকিপূর্ণ। নতুন ভবনের জন্য তালিকা তৈরি করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পাঠানো হলেও অর্থ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। তবে বিকল্প কক্ষের ব্যবস্থা করে দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের পাঠদান চালু রাখার চেষ্টা করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশির আহম্মেদ (অ: দা:) বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ স্কুল ভবনের বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মাসিক সমন্বয় উত্থাপন করলে দ্রুত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

শরণখোলা প্রতিনিধি: পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের মেহের আলী চর এলাকার একটি খাল থেকে পারমিট বিহীন চারটি ফিশিং ট্রলারসহ ৪৪ জন জেলেকে আটক কেরেছে বনবিভাগ। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় গোপন তথ্যের ভিত্তিতে বনবিভাগের বিশেষ বাহিনী ‘স্মার্ট’ দলের সদস্যরা তাদেরকে আটক করেন। এসব জেলে বনবিভাগের চোখ এবং সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দুবলা ও মেহের আলীর চরসংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে মৎস্য আহরণ করে আসছিলেন বলে জনিয়েছে বনবিভাগ।
বনবিভাগ জানায়, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় সাগরে টিকতে না পেরে ট্রলার নিয়ে মেহেরআলী খালে আশ্রয় নেয় এই অবৈধ জেলেরা। এ খবর টহলরত স্মার্ট দলের সদস্যরা জানতে পেরে ট্রলারের পাসপারমিট দেখতে চাইলে জেলেরা কিছুই দেখাতে পারেননি। পরে তাদেরকে আটক করে ট্রলারসহ দুবলা টহল ফাঁড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়।
দুবলা জেলে পল্লী টহল ফাঁড়ির ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রহ্লাদ চন্দ্র রায় জানান, জব্দকৃত ফিশিং ট্রলারগুলো হচ্ছে এফবি মায়ের দোয়া, এফবি মামা-ভাগ্নে, এফবি তাহিরা-১ এবং এফবি ইউসুফ। ট্রলার চারটির মালিক পিরোজপুরের রাজা মিয়া ও মোশারেফ হোসেন নামে দুই মৎস্য ব্যবসায়ীর। তবে ৪৪ জেলের নাম ঠিকানা জানাতে পরেননি তিনি।
পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা (এসিএফ) মো. শামসুল আরেফীন জানান, সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এসব জেলেরা দীর্ঘদিন ধরে সাগর ও সুন্দরবনরে বিভিন্ন এলাকায় চুরি করে মাছ শিকার করে আসছিলেন। এদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

স্টাফ রিপোর্টার: উপজেলার মিরুখালী ইউনিয়ন বাজারে দোকান ঘর সংস্কার করার সময় প্রতিপক্ষের হামলায় ইউপি সদস্যসহ ৩ জন গুরুতর জখম হয়েছেন। এ ঘটনায় দোকান মালিকের চাচা মহিউদ্দিন আহম্মেদ বাদি হয়ে প্রতিপক্ষ মাসুম বিল্লাহসহ ৪ জন নামীয় ও অজ্ঞাত ৯ জনের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত মামলা আমলে নিয়ে মাসুম বিল্লাহ নামের একজনকে গ্রেপ্তারী ও অন্যান্য আসামীদের সমনের আদেশ দেন।
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মহিউদ্দিন আহমেদের ভাতিজা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত. গফফার হাওলাদারের ছেলে মাশবেকুল আজম রবির ডিসিআরকৃত জমিতে দোকান ও বসতঘর তুলে বহু বছর ধরে ভোগদখল করে আসছে। বর্তমানে রবি ঢাকায় বসবাস করছে। তার আদেশে গত ৯ সেপ্টেম্বর রাজমিস্ত্রী বনি আমীন দোকান সংস্কার করার সময় পাশের অংশে থাকা মাসুম বিল্লাহ ও তার বাহিনীরা বনি আমীনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে স্থানীয় যুবক নিজাম সরদার ও ইউপি সদস্য মেরিন গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা গুরুতর জখম বনি আমীন ও নিজাম সরদারকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন ও ইউপি সদস্য মেরিনকে প্রথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল বলেন, আসমী মাসুম বিল্লাহকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

স্টাফ রিপোর্টার: “শেখ হাসিনার বারতা নারী পুরুষ সমতা” এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বৃত্তিমূলক আবাসিক মহিলা প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ গুলিসাখালী গ্রামের বৃত্তিমূলক আবাসিক কেন্দ্রের হলরুমে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে এ প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের (গ্রেড-১) মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস।
এসময়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দ্বায়িত্ব) মো. বশির আহমেদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন পিরোজপুর মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. জাকির হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মনিকা আক্তার ও মঠবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহিদ উদ্দিন পলাশ প্রমূখ।
জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি (এমপি) এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটির ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন। এসময় সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও পিরোজপুর-৩ (মঠবাড়িয়া) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ ডাঃ মোঃ রুস্তুম আলী ফরাজি উপস্থিত ছিলেন।
উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মনিকা আক্তার বলেন, ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে অনলাইনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে দুই শিফটে আধুনিক গার্মেন্টস ও কম্পিউটার প্রশিক্ষণে মোট ৫০ জন প্রশিক্ষণার্থী প্রশিক্ষণ নিবে। তিনি আরও জানান, প্রশিক্ষণ গ্রহন কালীন তিন মাসে শিক্ষার্থীদের থাকা খাওয়া সম্পূর্ণ ফ্রি। ট্রেনিং শেষে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে সনদ প্রদান ও সম্মানী প্রদান করা হবে।

Add
Add
Add
Add

ফেইসবুকে আমরা

পুরাতন খবর

SatSunMonTueWedThuFri
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930 
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31      
   1234
567891011
12131415161718
2627282930  
       
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
     12
10111213141516
17181920212223
24252627282930
       
  12345
6789101112
2728293031  
       
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728     
       
      1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031     
   1234
567891011
12131415161718
262728293031 
       
78910111213
21222324252627
282930    
       
     12
3456789
17181920212223
24252627282930
31      
   1234
567891011
12131415161718
       
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
    123
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
  12345
20212223242526
27282930   
       
      1
9101112131415
23242526272829
3031     
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930 
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
1234567
15161718192021
22232425262728
29      
       
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
 123456
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
      1
9101112131415
16171819202122
30      
   1234
567891011
262728293031 
       
14151617181920
21222324252627
282930    
       
     12
3456789
10111213141516
24252627282930
31      
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
1234567
15161718192021
22232425262728
2930     
       
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
  12345
6789101112
13141516171819
27282930   
       
      1
2345678
9101112131415
16171819202122
3031     
      1
2345678
9101112131415
16171819202122
232425262728 
       
   1234
567891011
19202122232425
262728293031 
       
293031    
       
     12
10111213141516
17181920212223
       
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
2930     
       
    123
18192021222324
       
28293031   
       
      1
16171819202122
30      
   1234
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
78910111213
282930    
       
     12
3456789
31      
     12
3456789
17181920212223
2425262728  
       
      1
23242526272829
3031     
 123456
78910111213
28293031