আজ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | বিকাল ৩:০৫

  • বাংলা English
সদ্য :

☉ নব নির্বাচিত এমপিকে ৬ ইউপি চেয়ারম্যানের ফুলেল শুভেচ্ছা☉ প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জাহাঙ্গীরের দাফন সম্পন্ন \ ঘাতক সিরাজুল গ্রেপ্তার☉ মঠবাড়িয়ায় বাল্য বিয়ে রোধে তারুণ্যের কন্ঠ অনুষ্ঠিত☉ অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন বানচালকারীদের কোন ছাড় নয়☉ বখাটে গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে বড়মাছুয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মানববন্ধন☉ মঠবাড়িয়া-বড়মাছুয়া সড়কে কার্পেটিং কাজে আবারও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার : পিচ-পাথর নিয়ে স্থানীয়দের ক্ষোভ☉ বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী আবদুর রশিদ মানিক মিঞা’র দাফন সম্পন্ন☉ ছাত্রলীগ নেতা সোহেলের নিঃশর্ত মুক্তি ও মামলা প্রতাহারের দাবিতে মানববন্ধন☉ মঠবাড়িয়ায় থানার ওসি প্রত্যাহার☉ ১৮ মামলার আসামী ফল সোহেলসহ গ্রেপ্তারকৃত-১২জন জেল হাজতে

ঘূর্ণিঝড় সিডরের ১১ বছর ॥ ক্ষত শুকায়নি এখনও

ঘূর্ণিঝড় সিডরের ১১ বছর ॥ ক্ষত শুকায়নি এখনও

স্টাফ রিপোর্টার: ঘূর্ণিঝড় সিডরের ১১ বছর পার হলেও পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার বলেশ^র নদ তীরবর্তী সাপলেজা ইউনিয়নের খেতাছিড়া গ্রাম ও বেতমোর ইউনিয়নের বলেশ্বরের বুকে জেগে ওঠা মাঝের চরের বেড়িবাঁধ আজও সংস্কার হয়নি। ওই সময়ে সিডরে উপকুলীয় খেতাছিড়া ও মাঝের চরের বেড়িবাঁধের ব্যাপক ক্ষতিসাধিত হয়। যার ক্ষত এখনও বয়ে বেড়াচ্ছে। এই ঝড়ে মোট নিহত ১শ ৮০ জনের মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ সাপলেজা ইউনিয়নে ৮০জন। এর মধ্যে খেতাছিড়া গ্রামের জেলে পল্লীতেই নিহত হন ৫০জন মানুষ। ঘূর্ণিঝড় সিডরে বিধ্বস্ত সেই বেড়িবাঁধের কারণে জলোচ্ছ্বাসে মানুষ এখনও আতংকিত রয়েছে। সিডরের এগার বছরে দুর্গত মানুষেরা কিছুটা ঘুরে দাড়ালেও খেতাছিড়া ও মাঝের চরের বেড়িবাধ আজও বিধ্বস্ত।
খেতাছিড়া গ্রামের সিডরে স্বজন হারা জেলে খলিল শরীফ জানান, ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর সিডরের ভয়াল রাতে খেতাছিড়া গ্রামের বলেশ^র নদ মোহনায় প্রথম জলোচ্ছ্বাস আঘাত হানে। মুহূর্তেই বেড়িবাঁধ বাঁধ ভেঙে ভাসিয়ে নেয় পুরো গ্রাম। ভয়ালতার রাতে তার পরিবারের ৭জন জন সদস্যসহ পুরো গ্রামে ৫০জন মানুষের প্রাণহানী ঘটে। সেই রাতে জেলে খলিল শরীফ গাছ আকড়ে বেঁচে থাকলেও তার পরিবারের ৭ সদস্য নিহত হন। বৃদ্ধা মা আলেয়া বেগম, স্ত্রী রওশন আরা, মেয়ে কারিমা, তিন নাতি সোনিয়া (৮) ও সিদ্দিক (৫), মিরাজ (৩) ও ভাই জলিল শরীফের স্ত্রী তাছলিমা বেগম নিহত হন। নিহতদের খেতাছিড়া বেড়িবাঁধের পাড়ে গণকবর দেওয়া হয়।
মাঝের চরের বাসিন্দা সিপিপির ওয়ারলেস অপারেটর আব্দুল হালিম মোল্লা সেই রাতে বিভিষিকাময় রাতের বর্ণনা দিয়ে জানান, ঝড় শুরুর সাথে সাথেই মাঝের চরের পশ্চিম অংশের বেড়ি বাধটি নদীর সংগে বিলীন হয়ে যায়। দীর্ঘ ১১ বছরেও বাধ সংস্কার না হওয়ায় জোয়ারের পানি হু হু করে লোকালয়ে ঢুকে ফসল ও বাসা বাড়ী তলিয়ে যায়। অনেকটাই জলোচ্ছাসের পানিতে আতংকিত থাকতে হয় চরবাসীকে।
সংশ্লিষ্ট ইউপি মেম্বর শহিদুল ইসলাম জানান, মাঝের চরের ক্ষতিগ্রস্থ বাধ সংস্কারে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও উপজেলা পরিষদের সভায় একাধিকবার অবহিত করলেও কোন সাড়া পাওয়া যায়নি।
উপজেলা সদর হতে ১৯ কিলোমিটার দুরে সাপলেজা ইউনিয়নের বলেশ^র নদ তীরের সিডরের উৎসমুখ খেতাছিড়া গ্রাম পরিদর্শন করে দেখা গেছে, সিডরের জ্বলোচ্ছাসের ক্ষত নিয়ে বিধ্বস্ত কোন মতে টিকে আছে বাঁধ। বাবুরহাট থেকে খেতাছিড়া হয়ে কচুবাড়িয়া পর্যন্ত নদী তীরের প্রায় চার কিলোমিটার বাঁধ এখনও বিধ্বস্ত। খেতাছিড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে হাজিগঞ্জ বাজার পর্যন্ত এক কিলোমিটার বিপর্যস্ত সড়কটি আজও পাকা হয়নি। জেলে অধ্যুষিত এ গ্রামের মানুষের বাঁধ ধ্বসের আতংক আজও কাটেনি।
৯৬ নম্বর খেতাছিড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুর রশীদ মোল্লা বলেন, সিডরের পর খেতাছিড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি বিধবস্ত হলে সিডর পরবর্তী স্কুল কাম সাইকোন শেল্টার নির্মাণ করা হয়। তবে ছোট ও অপরিসর এ সাইকোন শেল্টারে ২০০ মানুষের বেশী আশ্রয় নিতে পারেনা।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, বিশ^ ব্যাংকের অর্থায়নে ৩০ কোটি টাকা ব্যায়ে ২০১৩ সালে বেরিবাধ ও ব্লক নির্মাণের দরপত্র আহ্বান করা হয়। তমা এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এ কাজ বাস্তবায়ন করছে। ১৬ সালের জানুয়ারী মাসে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করে। যাহা এক পর্যায়ে বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে খেতাছিড়ায় বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও ১৮০০ মিটার ব্লক নির্মাণের কাজ চলছে। বেড়িবাঁধের পাড়ের বসতি সরিয়ে না নেয়ায় আপাতত বাঁধে মাটি ভরাটের কাজ থমকে আছে। কাজটি সম্পন্ন হলে জ্বলোচ্ছাসের কবল হতে খেতাছিড়ার মানুষ রক্ষা পাবে।
খেতাছিড়া গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য আফজাল হোসেন বলেন, বাবুর হাট থেকে খেতাছিড়া বাঁধের সাড়ে তিন কিলোমিটারে বিধ্বস্ত বাঁধের বাইরে এখনও ৪শ ৫০ জেলে পরিবারের বসতি। তাদের অনেকেরই বসতির জমি নেই। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে বাঁধে মাটি ভরাট আর কিছু অংশে দায়সারা ব্লক নির্মাণ কাজ চলছে। তবে তা জ্বলোচ্ছাসের দুর্যোগ ঠেকাতে কোন কাজে আসবেনা খেতাছিড়ার দুর্গত মানুষদের।

Comments

comments

আরও পড়ুন

নব নির্বাচিত এমপিকে ৬ ইউপি চেয়ারম্যানের ফুলেল শুভেচ্ছা
নব নির্বাচিত এমপিকে ৬ ইউপি চেয়ারম্যানের ফুলেল শুভেচ্ছা
নব নির্বাচিত এমপিকে ৬ ইউপি চেয়ারম্যানের ফুলেল শুভেচ্ছা
প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জাহাঙ্গীরের দাফন সম্পন্ন \ ঘাতক সিরাজুল গ্রেপ্তার
প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জাহাঙ্গীরের দাফন সম্পন্ন \ ঘাতক সিরাজুল গ্রেপ্তার
প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জাহাঙ্গীরের দাফন সম্পন্ন \ ঘাতক সিরাজুল গ্রেপ্তার
মঠবাড়িয়ায় বাল্য বিয়ে রোধে তারুণ্যের কন্ঠ অনুষ্ঠিত
মঠবাড়িয়ায় বাল্য বিয়ে রোধে তারুণ্যের কন্ঠ অনুষ্ঠিত
মঠবাড়িয়ায় বাল্য বিয়ে রোধে তারুণ্যের কন্ঠ অনুষ্ঠিত
অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন বানচালকারীদের কোন ছাড় নয়
অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন বানচালকারীদের কোন ছাড় নয়
অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন বানচালকারীদের কোন ছাড় নয়
বখাটে গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে বড়মাছুয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মানববন্ধন
বখাটে গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে বড়মাছুয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মানববন্ধন
বখাটে গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে বড়মাছুয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মানববন্ধন
মঠবাড়িয়া-বড়মাছুয়া সড়কে কার্পেটিং কাজে আবারও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার : পিচ-পাথর নিয়ে স্থানীয়দের ক্ষোভ
মঠবাড়িয়া-বড়মাছুয়া সড়কে কার্পেটিং কাজে আবারও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার : পিচ-পাথর নিয়ে স্থানীয়দের ক্ষোভ
মঠবাড়িয়া-বড়মাছুয়া সড়কে কার্পেটিং কাজে আবারও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার : পিচ-পাথর নিয়ে স্থানীয়দের ক্ষোভ